skin care

শীতের মাঝেও ত্বক থাকুক সুস্থ্য – শীতে ত্বকের যত্ন – শীতের হিমেল হাওয়া এবং আর্দ্রতা কমে যাওয়ার ফলে আমাদের শরীরের ত্বক যেমন খসখসে ও মলিন হয়ে যায়; বাইরের প্রকৃতিও তেমনি শুকিয়ে যায় ও বাতাসে ধুলাবালুর পরিমানও পেড়ে যায়। ফলে একই সাথে ভিতর বাইরের এই শুস্কতা আমাদের ত্বকের চুলকানি, ফেটে যাওয়া সহ বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি করে। আর তাই শীতের মাঝেও ত্বককে সুস্থ রাখতে আমাদের নেওয়া লাগে কিছু বাড়তি যত্ন। আজকের সম্পূর্ণায় আমরা সেগুলি নিয়েই আলোচনা করবো।

নিয়মিত গোসল করুনঃ

শীতের সময় ঠান্ডার কারণে অনেকেই নিয়মিত গোসল করা থেকে দূরে থাকতে চান; যা আপনার জন্য শুধু খারাপই নয়, আপনার দেহের বিভিন্ন সমস্যার জন্যও দায়ী। নিয়মিত গোসল করা একটি জরুরী বিষয়। এছাড়া গোসল এর সময় শরীর সঠিক ভাবে সব খানে পানি পায়, ফলে ত্বক শুস্ক থাকা থেকে রক্ষা পায়।

ময়েশ্চারাইজিং সাবান ব্যবহার করুনঃ

শীতের সময় সাবান কম ব্যবহার করা ভালো; আর ব্যবহার করতে হলে ময়েশ্চারাইজিং যুক্ত সাবান ব্যবহার করা উত্তম। এতে ত্বকের খসখসে ভাব একদমই কমে যায়।

লোশন ব্যবহার করুনঃ

গোসলের পর এবং রাত্রে ঘুমাতে যাবার আগে ময়েশ্চারাইজিং লোশন ব্যবহার করলে দ্রুতই ত্বকের খসখসে ভাব দূর হয়। এবং এতে করে চুলকানী এবং ত্বক ফাঁটার মত সমস্যা থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

অলিভ অয়েল ব্যবহার করুনঃ

ত্বকের আর্দ্রতা এবং ঔজ্জ্বল্য বাড়াতে প্রতিদিনই গোসলের পর এবং রাত্রে ঘুমাতে যাবার আগে আপনি লিকুইড প্যারাফিন অথবা অলিভ অয়েল ব্যবহার করতে পারেন।

চুলের যত্নঃ

শীতে ত্বকের মত চুলেও সমস্যা দেখা দেয়; বিশেষ করে খুশকির সমস্যা বাড়ে। এই সমস্যা সমাধানে আমাদের এই পোষ্টটি পড়তে পারেনঃ শীতে আপনার চুল থাকুক খুশকি মুক্ত

সানস্ক্রিন ব্যবহার করুনঃ

শীতের সময় আমরা অনেকেই মনে করি যে যেহেতু গরম নেই, তাই আমাদের সানস্ক্রিন মাখার প্রয়োজনীয়তা নাই। কিন্তু এটা ভুল ধারণা, নিয়মিত সানস্ক্রিন মাখুন। ঘর থেকে বের হবার অন্তত ৩০ মিনিট আগে এটি মেখে নিন।

ময়েশ্চারাইজার ক্রিম ব্যবহার করুনঃ

মুখের যত্নে শীতের সময়টা ময়েশ্চারাইজার ক্রিম ব্যবহার করুন। এতে মুখের ত্বক পাবে সঠিক আর্দ্রতা, মুখ থাকবে উজ্জল ও প্রানবন্ত। ব্রণের সমস্যা থাকলে ক্রিমের সাথে একটু পানি মিশেয়ে নিন।

ঠোঁটের যত্নঃ

আর্দ্রতা কমের কারণ সব থেকে বেশী সমস্যা যেখানে টের পাওয়া যায় তা হচ্ছে ঠোঁট। শীতে দ্রুতই ঠোঁট শুকিয়ে যায় এবং ফেঁটে যায়। তাই ঠোঁটের যত্নে নিয়মিত পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহার করুন। জিভ দিয়ে কখনোই ঠোঁট ভেজাতে যাবেন না; এতেকরে বাইরের জীবানু আপনি মুখের মধ্যে টেনে নিচ্ছেন।

হাত ও পায়ের যত্নঃ

হাত ও পা মসৃণ রাখতে পেট্রোলিয়াম জেলি এবং গ্লিসারিন ব্যবহার করতে পারেন। যাদের হাত শুস্ক হয়ে যায় তারা হাতে গ্লিসারিন মিশ্রিত পানি ব্যবহার করুন, হাত দ্রুত শুকিয়ে যাবে না। আর যাদের পায়ের গোড়ালী ফেটে যায় তারা শীত আসবার আগে থেকেই পা প্রতিদিন ঘসে সেখানে গ্লিসারিন এবং পেট্রোলিয়াম জেলি ব্যবহার করুন। পারলে জুতা পরে থাকুন যতটা সম্ভব।

অন্যান্য সমস্যাঃ

শীতে সমস্যার অন্ত নেই; তাই এ সময়ে সতর্ক থাকাটাই বাঞ্চনিয়। যদি চর্ম রোগ থেকে থাকে, তাহলে অবশ্যই আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিন। যে কোন সমস্যায় নিজে থেকে কোন ঔষধ না খেয়ে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিবেন। এলার্জির সমস্যা থাকলে লোশন-পেট্রোলিয়াম জেলি-ক্রিম মাখবার সময় আগে দেহের কোথাও অল্প একটু জায়গায় লাগিয়ে পরীক্ষা করে নিন; যদি সমস্যা মনে হয় সেটি ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।

রূপচর্চা, দেহের বিভিন্ন অঙ্গের যত্ন, রান্না, স্বাস্থ্যটিপস সহ মেয়েদের বিভিন্ন বিষয়ে জানতে আমাদের সাথেই থাকুন। সম্পূর্ণার ফেসবুক ফ্যান পেইজে লাইক দিয়ে নিয়মিত আমাদের পোষ্ট পেতে পারেন। আর আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে কিংবা আরও আলোচনা করতে চাইলে জয়েন করতে পারেন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে

আপনার মন্তব্য

টি মন্তব্য